যারা এখনো সিঙ্গেল আছেন বা নতুন সম্পর্কের কথা ভাবছেন তাদের জন্য এটা একটা সুখবর ই বলা যায়। যারা এতদিন নিজের জীবন-সঙ্গী বা ভালোবাসার মানুষকে খুজতে ঘটক ধরে শুধু টাকার অপচয় করে এসেছেন তাদের জন্য facebook এর নতুন উপহার “ফেসবুক ডেটিং সার্ভিস“। ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে বন্ধু হওয়া, তারপর কত শত চেষ্টা সেই বন্ধুত্বকে ভালোবাসায় রুপান্তর করা। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শুধু ফ্রেন্ড হিসাবেই ফেসবুকে যুক্ত থাকা নয়তো একে অপরকে আনফ্রেন্ড বা ব্লক করে দেয়া। ফেসবুকে চলা সমসাময়িক ব্যর্থ ভালোবাসার গল্পগুলো প্রায় অনেকটা এরকমই। তবে হ্যাঁ ফেসবুকের বন্ধুত্ব থেকে বাস্তব জীবনে জীবনসঙ্গী হবার ঘটনাও কম নয়। আর ফেসবুকের মাধ্যমে প্রেম বা বিয়ে এখন আর কোন অঘটনও নয়। আমরা প্রায়ই দেখি ফেসবুকের পরিচয় থেকে পাত্র পাত্রীর স্থান, কাল, পাত্র, দেশ, জাতি বা ধর্মের সীমা পেরিয়ে একে অন্যের কাছে ছুটে আসে। আর তাইতো এই পৃথিবী নামক গ্রহের মানুষগুলোকে আরও কাছাকাছি নিয়ে সম্পর্কের বাধনে বাঁধার জন্যই ফেসবুকের এই নতুন সেবা ফেসবুক ডেটিং সার্ভিস

ফেসবুক ডেটিং সেবা কি ?

আগে বিয়ের জন্য পাত্র-পাত্রী খুজতে মানুষ কত পন্থা না অবলম্বন করতো। এই ঘটক ধরা, নয়তো বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী সবাই মিলে পাত্র-পাত্রী খোঁজা। আর তাইতো এই ডিজিটাল যুগে জীবনসঙ্গী খুজতে ফেসবুক চালু করতে যাচ্ছে তাদের ডেটিং সেবা। যার মাধ্যমে মানুষ খুজে পাবে তার পছন্দের জীবনসঙ্গীকে।

গত ১লা মে ফেসবুকের F8 ডেভেলপার কনফারেন্সে ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ ঘোষণা দেন “খুব শিঘ্রই ফেসবুকে চালু হতে যাচ্ছে ডেটিং সেবা“।

ফেসবুকের এই সেবা হতে যাচ্ছে দীর্ঘস্থায়ী সত্যিকারের সম্পর্ক তৈরির অনন্য মাধ্যম, স্বল্প সময়ের শারীরিক সম্পর্কের (Hookups) জন্য এটা নয়” ডেটিং সেবা সম্পর্কে এভাবেই ঘোষণা দেন মার্ক জুকারবার্গ

 

Facebook Is Launching A New Dating Feature To Compete With Tinder

 

ফেসবুক ডেটিং সেবা কিভাবে কাজ করবে ?

যদিও মার্ক তার কোথায় ফেসবুকের ডেটিং সার্ভিস সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু বলেন নি কিন্তু পরে ফেসবুক তাদের ব্লগে ডেটিং সার্ভিস সম্পর্কে লিখেছে

ডেটিং

আমরা ডেটিং এবং স্থায়ী সম্পর্কের জন্য ফেসবুক অ্যাপ্লিকেশনে নতুন একটি সেবা সংযুক্ত করতে কাজ করে যাচ্ছি। মানুষ ইতিমধ্যেই ফেসবুকের মাধ্যমে নতুন মানুষের সাথে পরিচিত হচ্ছে আর আমরা এই অভিজ্ঞতাকে আরও সুন্দর করতে চাই। ফেসবুক ব্যবহারকারী তার জন্য একটি ডেটিং প্রোফাইল তৈরি করতে পারবে এবং অবশ্যই তা তাদের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে আলাদা হবে- এবং পারস্পারিক পছন্দ, অপছন্দ, মিল এবং পারস্পরিক বন্ধুদের উপর ভিত্তি করে সম্ভাব্য জোড়া হিসাবে প্রস্তাব করা হবে। এই গ্রুপের মাধ্যমে নিজের সাথে সঙ্গীর পছন্দের মিল অনুসারে জীবনসঙ্গী খুঁজে পাবার উপায় থাকবে। আর মানুষ ডেটিং সাইটে কি করছে না করছে তা তাদের ফেসবুক ফ্রেন্ডরা জানতে পারবেন না। এই বছরেই পরীক্ষামূলক ভাবে ডেটিং সেবা শুরু হওয়ার পরে আমরা আরো বিস্তারিত তথ্য শেয়ার করব।

 

Dating on Facebook

 

ফেসবুকে কেন ডেটিং সার্ভিস?

তবে ডেটিং ইন্ডাস্ট্রিতে ফেসবুকের প্রবেশকে অনেকেই খুব বেশি চমক হিসাবে নিচ্ছে না। কিছুদিন আগের পিউ রিসার্চ সেন্টারের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে গড়ে ১৫% আমেরিকান তাদের জীবদ্দশায় ডেটিং সাইট ব্যবহার করেন এবং যেটা অন্যান্য দেশ গুলোতেও আনুপাতিক হারে বাড়ছে। সাম্প্রতিক অন্য আরেকটি গবেষণায় দেখা গেছে ডেটিং ইন্ডাস্ট্রি গড়ে প্রতি বছর ৩ বিলিয়ন ডলার রেভিনিউ করে

তাছাড়া এটা ভুললেও চলবে না যে ফেসবুক দীর্ঘদিন ধরে মানুষের রোমান্টিক সম্পর্কের সাথে ভার্চুয়ালি জড়িয়ে আছে। আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের “রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস” এখন বিশ্বব্যাপী নতুন প্রজন্মের কাছে এতোটাই জনপ্রিয় আর জীবনের অবিছেদ্দ্য অংশ হয়ে উঠেছে যে ফেসবুকের নতুন এই ডেটিং ফিচার তাদের জন্য নিঃসন্দেহে অন্যরকম পাওয়া।

এখন যারা রিলেশনশিপ স্ট্যাটাসে কমপ্লিকেটেড ব্যবহার করছে সম্পর্কের জটিল অবস্থায়, তারা যদি নতুন ফিচারে এভাবে প্রকাশ করে যে “ডেটিং চলছে” অথবা “ভালোবাসায় যাচ্ছে দিন” সেটা হয়তো ফেসবুকের জন্য ভালই হবে।

তবে যেহেতু ফেসবুক এখনো Dating Service চালু করেনি এবং এ সম্পর্কে বিস্তারিত প্রকাশ করেনি তাই স্বভাবতই আমাদের মনে নানা প্রশ্ন উঁকি-ঝুঁকি দিচ্ছে যার ভিতরে সবথেকে বড় ৩টি প্রশ্ন হলঃ

১) আপনার ডেটিং তথ্য নিরাপদ থাকবে তোয়

ফেসবুক জানিয়েছে ডেটিং সার্ভিস এর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ফেসবুক এর নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থার অনুরূপ থাকবে। তাই যদি হয় তাহলে কিছুদিন আগে যে ক্যামব্রিজ অ্যানালেটিকা কেলেঙ্কারি হল একই ভাবে আপনার নিজের জীবনের একান্ত কিছু তথ্য যদি অন্য কেউ হাতিয়ে নেয়। সেটা অবশ্য ভাল কিছু হবে না। তাই ফেসবুক কে তাদের ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তা ব্যবস্থার আরও উন্নতি করতেই হবে।

২) আপনার বন্ধু বান্ধব এবং পরিবার এর কতটুকু জানবে?

মারকের কথা আর ফেসবুকের ঘোষণা অনুযায়ী ডেটিং সেবা আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে থেকে আলাদা হবে। ফলে আপনার জন্য ফেসবুক ঠিক তেমন সম্ভাব্য সঙ্গী খুঁজে বের করবেন যাদের সাথে পারস্পারিক পছন্দ, অপছন্দ, মিল এবং পারস্পরিক বন্ধুদের যোগাযোগ বা মিউচুয়াল ফ্রেন্ড থাকবে। তাই আপনার এই প্রোফাইল সম্পর্কে কে জানবে আর কে জানবে না সে সম্পর্কে আরও বিস্তারিত হয়তো এখনই বলা সম্ভব নয়। বন্ধু, সহকর্মী বা পরিবারের কেউ জানবে কিনা এটা হয়তো আপনাকেই ঠিক করতে হবে।

৩) ঠিক কাদের জন্য এই নতুন সেবা?

ফেসবুক জানিয়েছে অনলাইনে আরও যেসব ডেটিং সাইট আছে তার থেকে ফেসবুক ডেটিং সেবার বিস্তর ফারাক থাকবে। অন্য ডেটিং সাইটে মানুষ শুধু কিছু সময় কাটানোর জন্যই হয়তো যায় কিন্তু ফেসবুকের পরিকল্পনা হচ্ছে মানুষকে চিরস্থায়ী বা দীর্ঘ সময়ের জন্য সম্পর্কে আবদ্ধ হতে উদ্বুদ্ধ করা। তাই বলা যায় এটা হয়তো তাদের জন্য যারা আসে পাশে অল্প পরিসরে খুঁজে খুঁজে হয়রান হয়েছেন তাদের জন্য জীবনসঙ্গী খোঁজার ভাল বিকল্প উপায় হতে পারে।

 

ফেসবুক ডেটিং সেবা – সমাজের জন্য আশীর্বাদ নাকি নতুন অভিশাপ 

তো যারা বিয়ের জন্য পাত্র বা পাত্রী খুঁজছেন তাদের জন্য হয়তো ফেসবুক ডেটিং সার্ভিস একটা নতুন এবং সহজ উপায় হবে ভবিষ্যৎ জীবনসঙ্গী খুজতে। তবে ফেসবুক এর ভাষ্য মতে তাদের এই ডেটিং সাইট চালু হতে এখনো কিছুদিন বাকি আছে। তাই ততো দিনে আপনিও চিন্তা করে নিন ফেসবুক ডেটিং সার্ভিসে আপনার কোন একাউন্ট থাকবে কি না। কারণ এই কিছুদিন আগেও যেভাবে কোটি কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য হ্যাক হয়েছে তাতে আপনি আপনার একান্ত ব্যাক্তিগত জীবনের কতটুকু ফেসবুকে প্রকাশ করবেন তাও ভাবনার বিষয় বৈকি !

তাছাড়া এমনিতেই ফেসবুক যেভাবে আমাদের চিন্তা ধারাকে সঙ্কীর্ণ করে দিচ্ছে সাথে মুল্যবান সময় নষ্টের বড় মাধ্যম হয়ে উঠেছে সেখানে তাদের এই নতুন ডেটিং সেবা মানুষ কে আরও বেশি কাছে আনতে গিয়ে না সমাজের আরও বেশি ক্ষতি করে সেটাই হয়তো আগামীতে মুখ্য বিষয় হয়ে দেখা দেবে। সবশেষে এটাই বলবো আধুনিক প্রযুক্তি আমাদের জন্য যেমন আশীর্বাদ তেমনি একে খারাপ পথে ব্যবহার করতে এটা অভিশাপও বটে। আপনিই ঠিক করবেন আপনি আপনার আসে পাশের প্রযুক্তির সুবিধাগুলো কীভাবে ব্যবহার করবেন, ভাল কাজে নাকি খারাপ উদ্দেশ্যে ।

Planet বাংলার সাথে থাকুন, আর চারপাশের বিশ্বটা দেখুন বাংলায়।

 

আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন   ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন